আমি বিস্বাদের ইতিহাস; রাস্তায় গিটারের সুর;
ছেঁড়া আইনের বই আর নষ্ট ভাংচুর,
আমি আঁধারের চায়ে ওঠা তামাকের ধোঁয়া;
ফেলে আসা শৈশবের ফিঁকে প্রেম ছোঁয়া,
আমি লুফে নেওয়া লোভে পড়া করিডোর;
আমি প্রেমিকা— প্রেমিকের সংজ্ঞায় তোর,
আমি যুবকের কান্নায় ওঁৎ পাতা ফাঁদ;
আমি মেঘে ঢাকা রাতে ছোঁয়া চাঁদ,
আমি অধরার ভ্রষ্ট খেলাঘর, লোভের কালো যান;
আমি নব্যদের সাইরেন শুনে জেগে ওঠা আজান,
আমি পানি বিযুক্ত ওয়াইনের গোলমাল মগজ,
আমাকে মাড়িয়ে পাড়ি দেওয়া কিভাবে সহজ?

আমি ফেলে আসা বাজারি লেখক-মোল্লার দল,
রবীন্দ্র-নজরুল-সমরেশ-কোরআনে খোঁজা বল।
আমি স্বার্থের দায়ে মুঠোপ্রেম খোঁজা জনতা,
আমি বন্ধুবিহীন একা পথ-ঘাট আর সরলতা।
আমি ছেঁড়া জুতো, এলোমেলো চুল— বয়কট প্রেমিকের,
আমি কাফন বিক্রেতার দু’মুঠো সুখ সেদিকের।
আমি ছিন্ন পরিবার, পৃথক বাবা-মায়ের উদ্ভট সন্তান;
আর মাথা নিচু করে হাঁটা ছেলের মাতৃত্বের মান।
আমি কান্না— না পাওয়া লেখাসমেত কলমের খাপ,
আবার প্রেমিকার ঠোঁট রাখা প্রেমিকের চায়ের কাপ।
আমি এই সমাজ, সমাজের ভালো-মন্দ, আবার পতন- ছন্দ,
দেখছ যেমন যাচ্ছে দিন— প্রসারে গন্ধ; অভিযোগ বন্ধ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে